বর্তমান সময়ে ফেসবুক একাউন্ট সংরক্ষিত রাখার সঠিক উপায় দেখে নিন সবাই

আসসালামুআলাইকুম.
. কেমন আছেন সবাই আশা করি ভাল আছেন ইনশাল্লাহ আমিও আপনাদের দোয়ায় ভালো রয়েছি তাই আজকে আপনাদের সামনে নতুন একটি আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম আমাদের আজকের আর্টিকেলটি প্রায় সবার কাছে গুরুত্বপূর্ণ একটি আর্টিকেল হতে চলেছে তো তাই সবাই প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়বেন তো তাহলে চলুন শুরু করা যাক আজকের আর্টিকেল
আমাদের আজকের টপিক হচ্ছে
সম্পূর্ণভাবে একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সংরক্ষণ রাখা

অনেকেই ভাবতে পারেন যে ফেসবুক নিয়ে আবার কি নতুন আপডেট তো আমি বলব ফেসবুকের কোন নতুন আপডেট নয় আমি যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব সেগুলো হচ্ছে আপনার আইডির সিকিউরিটি সম্পর্কে যেগুলো আপনার জানা খুবই জরুরী বর্তমান সময়ে নয়তো আপনি পড়তে পারেন খুব বড় একটি বিপদে বা হয়ে যেতে পারে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট টি হ্যাক অন্য কেউ নিয়ে নিতে পারে তো কেউ মিস করবেন না দয়া করে

বর্তমান সময়ে শোনা যাচ্ছে যে বেশির ভাগ মানুষের ফেসবুক একাউন্ট অন্য কেউ এক্সেস নিয়ে নিচ্ছে তারা কিন্তু খুব সহজভাবে আপনার অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস নিতে পারতেছে না আপনার কিছু ভুল কাজের জন্যই তারা আপনার অ্যাক্সিস টিনিয়ে নিতেছে আমি আজকে আপনাদেরকে সেই ভুল কাজ গুলো দেখিয়ে দেবো যে ভুল কাজ গুলি করার কারণে গত কয়েক দিনে প্রায় কয়েক হাজার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়ে গেছে এবং এখনো সেই কাজগুলো চলতেছে অনেকে হয়তো জানেন না তুমি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিরাপদ নিয়ে নিচে কয়েকটি উদাহরণ দিচ্ছি আপনার সবগুলো সিকিউরিটি চেক করে নিবেন

ফেক লিংকে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন

বর্তমানে একাউন্টের সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ফেক লিংকে ক্লিক করা বা ফিশিং লিংকে ক্লিক করা অনেকেই হয়তো জানেন না যে শিশির লিংকে ক্লিক করলে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সহ আপনার ফোনের যাবতীয় তথ্য হ্যাকারদের কাছে চলে যেতে পারে যা আপনার জন্য খুবই ক্ষতিকর আপনি দেখবেন গত কয়েকদিন ধরে মেসেঞ্জারে কেউ না কেউ আপনাকে একটি লিঙ্ক পাঠিয়েছে যে লিঙ্কটি অনেক বড় এবং সেখানে কিছু গিফট উপহার এরকম কিছু রয়েছে যারা জানো না তারা তো সেই লিঙ্কে ক্লিক করে এবং কে সেখানে কিছু শর্ত থাকে শর্তগুলো পূরণ করে যে শর্তগুলো আপনার ফেসবুক আইডি সহ আপনার ফোনে থাকার যে কোন শর্ত হতে পারে!

কিন্তু আপনি বুঝতে পারবেন না যে কিসের জন্য তারা সেই শর্ত গুলো দিয়েছে আপনাকে যদি কেউ এই লিংক দিয়ে তাকে বলবেন যে ভাই আপনি এই লিংক শেয়ার করা বন্ধ করেন এবং আপনি ভুলে নিজে কোন সময়ে লিংকে ক্লিক করবেন না এই লিংকে ক্লিক করার পর বেশিরভাগ মানুষেরই ফেসবুক একাউন্ট অন্য কেউ এক্সেস নিয়ে নিতে পারে কারণ সেই লিঙ্কে অনেক কিছু সেট করা থাকে যা একবার ক্লিক করার সাথে সাথে আপনার ফোনে থেকে সবকিছু তাদের কন্ট্রোলে চলে যায় তাই আপনি কোন সময় ভুল করেও এ ধরনের লিঙ্ক এ ক্লিক করবেন না এবং আপনার বন্ধুকে বলবেন এই ধরণের লিংকে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকার জন

টু-ফ্যাক্টর ভেরিফিকেশন অন রাখা

বর্তমানে অনেকেই হয়তো জানেন না যে যদি আপনি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে টু ফ্যাক্টর ভেরিফিকেশন অন করে দেন তাহলে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়া থেকে 90 শতাংশ বিরত থাকে ফেসবুকের সবচেয়ে বড় সিকিউরিটি হচ্ছে টু ফ্যাক্টর ভেরিফিকেশন এটি আপনাকে সেটিং থেকে করতে হবে আপনি সেটিং এ যাওয়ার পর পাসওয়ার্ড নামে একটি অপশন পাবেন সেখানে যাবেন এবং তারপর নিচের দিকে দেখতে পারবেন টু ফ্যাক্টর ভেরিফিকেশন লেখা রয়েছে সেখান থেকে আপনি সেটি অন করে দিবেন

এটি সিকিউরিটি কিভাবে করে?
আপনার ফেসবুক আইডি তৈরি করার সময় যে আপনি কি নাম্বার দিয়েছিলেন মোবাইল নাম্বার আপনি যখন কোন ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্টটি সক্রিয় লগইন করতে চাইবেন তখন আপনার সেই অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় সেই মোবাইল নাম্বারটিতে একটি এসএমএস যাবে এবং সেটিতে একটি কোড থাকবে যে কোডটি দ্বারা আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট লগইন করতে পারবেন যদি আপনি সেই কোডটি না দিতে পারেন তাহলে কখনো আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগ-ইন হবে না এবং যখন আপনি আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন করবেন অবশ্যই আপনার কাছে একাউন্ট তৈরিকৃত মোবাইল নাম্বারটি থাকা লাগবে

যদি আপনার ফেসবুক একাউন্টের পাসওয়ার্ড অন্য কেউ জেনে যায় তাহলে কিন্তু সে আপনার একাউন্টে লগইন করতে পারবে না কারণ যখন সে সঠিক পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে যাবে তখন টু ফ্যাক্টর এর মাধ্যমে একটি কোড পাঠাবে আপনার নাম্বারে যদি আপনি সেই কোড নাম্বারটা অন্য কাউকে না দেন তাহলে কখনই সে আপনার একাউন্টে লগইন করতে পারবে না শুধুমাত্র সেই কোডটি সেখানে সাবমিট করলেই কিন্তু অ্যাকাউন্ট লগইন হয়ে যাবে.

প্রোফাইলে আজেবাজে পোস্ট করা থেকে বিরত থাকা

নিজের প্রোফাইলে কখনো আজেবাজে পোস্ট বা আজেবাজে ফটো শেয়ার করবেন না এছাড়াও রয়েছে লিংক অনেকেই রয়েছে যারা বিভিন্ন ধরনের লিঙ্ক ফেসবুক প্রোফাইলে শেয়ার করে থাকে এই কাজগুলো করবেন না কারন আপনার লিংকটি হতে পারে অবৈধ যা ফেসবুকে ভেরিফাইড নয় এবং আপনি এরকম করবেন লিংক শেয়ার করার পর আপনার ফিলিংস পাবেন চলে যায় যা আপনি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সাপোর্ট ইনবক্সে অপশনে গিয়ে দেখতে পারেন

খারাপ পিকচার বা লিংক গুলো কখনো নিজের প্রোফাইলে শেয়ার করবেন না যদি শেয়ার করেন তাহলে যদি কেউ আপনার সেই লিঙ্কে রিপোর্ট করে তাহলে আপনার একাউন্টটি লক অথবা সাসপেন্ড করতে পারে এগুলো থেকে সবসময় বিরত থাকার চেষ্টা করবেন তাহলে আপনার একাউন্টের সব সময় সেভ থাকবে

আমার কথা
আপনার একাউন্টে সংরক্ষিত রাখার চেষ্টা আপনাকে করতে হবে কারণ আপনার একটি অ্যাকাউন্ট অনেক মূল্যবান সব সময় চেষ্টা করবেন অন্য লিঙ্ক ক্লিক না করার এবং উপরের যে ধাপগুলো বলে দিলাম সেগুলো ফলো করবেন তাহলে কোন সময় আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সমস্যা হবে না তাহলে আশা করি সবার কাছে আমার পোস্টটি ভালো লেগেছে যদি ভালো লাগে তাহলে শেয়ার করতে পারেন আপনার বন্ধুদের সাথে এবং কমেন্টে জানিয়ে দিতে পারেন আপনার মতামত সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আমাদের সাথেই থাকবেন ধন্যবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published.